রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:১২ পূর্বাহ্ন [gtranslate]
Headline
Headline
রামপালে মরিয়ম বেগম মেমোরিয়াল ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার’র উদ্বোধন ঝিকরগাছা থানার দু’এএসআইসহ এক কনস্টেবলের বিদায় সংবর্ধনা যশোর থেকে যাত্রা শুরু করলো এশিয়ার প্রথম প্রি-ফ্যাব্রিকেটেড মডিউলার ডেটা সেন্টার ‘সাইফার’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য মনির হোসেনের স্মরণে কালীগঞ্জে আলোচনা ও দোয়া বরগুনা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সাংসদ গোলাম সরোয়ার টুকু’র শুভেচ্ছা বিনিময় ডাসার প্রেসক্লাবের ১৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষনা। নড়াইলে যুব সংঘ মৎস্য খামারে বিষ প্রয়োগে মাছ নিধনের অভিযোগ পটিয়ায় তিনদিন ব্যাপি বইমেলায় অংশ নিয়েছেন চক্রশালা স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থী পশ্চিম মেদিনীপুরের শালবনী এলাকায়, দুদিনে হাতির হানায় মৃত ২ চৌদ্দগ্রামের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু ইসলামপুরে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত রামপালে দুইদিন ব্যাপী বই মেলার উদ্বোধন করলেন এমপি হাবিবুন নাহার রামপালে শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় পালিত মহান শহিদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পটিয়ার নাইখাইন হাতে খড়ি শিশু বিদ্যা নিকেতন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন চৌদ্দগ্রাম উপজেলায় দুই বীর মুক্তিযোদ্ধার বিদায় রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শায়িত ভাষা শহীদদের স্বরণে গাজীপুর সদর উপজেলা প্রেসক্লাবের শ্রদ্ধা নিবেদন পটিয়ায় এপেক্স ক্লাবের আয়োজনে মাতৃভাষা দিবস উদযাপন ঠাকুর গাঁও পীর গঞ্জে ভাষা শহীদদের স্মৃতির প্রতি বাংলাদেশ জাতীয় সাংবাদিক ফোরাম পুষ্পস্তবক অর্পণ আজ মহান একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস সাদা রঙের পৃথিবীর মিউজিক লঞ্চ এবং ডক্টর সোহিনী শাস্ত্রীর বই প্রকাশ
আমতলীতে খেটে খাওয়া শ্রমজীবি মানুষের মানবেতর জীবনযাপন
/ ১১৪ Time View
Update : মঙ্গলবার, ১৩ জুলাই, ২০২১, ১২:২৯ অপরাহ্ন

সাইফুল্লাহ নাসির,আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধিঃ
মহামারি করোনাভাইরাসের প্রার্দুভাবে বরগুনার আমতলী উপজেলায় ৫১ হাজার ৪৪৬ জন হতদরিদ্র খেটে খাওয়া শ্রমজীবি মানুষগুলো কর্মহীন হয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। সরকারীভাবে এদের সাহায্যের দাবী জানিয়েছেন ভুক্তভোগী খেটে খাওয়া শ্রমজীবিরা।

জানাগেছে, মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকার গত ১ জুলাই থেকে বিধি নিষেধ আরোপ ও কঠোর লকডাউন ঘোষনা করেছে। ওই বিধি নিষেধে মানুষকে ঘরে থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। কঠোর লকডাউন মানতে গিয়ে উপজেলার দরিদ্র, হতদরিদ্র, রিক্সাচালক, ভ্যানচালক, পরিবহন শ্রমিক, দিনমজুরসহ খেটে খাওয়া শ্রমজীবি মানুষ কর্মহীন হয়ে পরে খেয়ে না খেয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

পরিসংখ্যান অফিস সুত্রে জানাগেছে, উপজেলায় মোট জনসংখ্যা প্রায় ২ লক্ষ ৫ হাজার ২১০ জন। এরমধ্যে দারিদ্র সীমার নিচে বসবাস করছে উপজেলার ২৫.০৭% মানুষ। ওই হিসেবে উপজেলায় ৫১ হাজার ৪৪৬ জন মানুষ হতদরিদ্র খেটে খাওয়া শ্রমজীবি। তারা দিন আনে দিন খায়। কাজ না জুটলে তাদের খাবারও জুটে না। লকডাউনের কারনে এদের অধিকাংশ আয় রোজগার হীন ও কর্মহীন হয়ে পরেছে।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, কঠোরভাবেই লকডাউন পালনে উপজেলা প্রশাসন, নৌ, বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ ও আনসার সদস্যরা মাঠে কাজ করছে। সড়কে চলতে না কোন যানবাহন। তারপরেও প্রশাসনের নজর এগিয়ে পরিবার পরিজনের মুখে দু’মুঠো ভাত তুলে দেয়ার জন্য শহর ও গ্রাম- গঞ্জের অলিগলিতে কিছু ব্যাটারীচালিত রিকসা ও ইজিবাইক চলাচল করছে।

ব্যাটারী চালিত রিক্সা চালক আলম, জাফর ও রফিক বলেন, লকডাউনের শুরুতে কয়েক দিন আমরা রিক্সা চালাইনি। আগে যা আয় রোজগার করেছি তা দিয়ে এতদিন বউ পোলাপান লইয়া খেয়ে পড়ে বাড়ীতেই অবস্থান করেছি। এখন সংসারে টানাপোড়েন শুরু হওয়ায় খেয়ে না খেয়ে থাকতে হচ্ছে। তাই বাধ্যহয়ে আমরা লকডাউনের মধ্যে রিক্সা নিয়ে রাস্তায় বের হয়েছি। গোপনে প্রশাসনে চোঁখকে ফাঁকি দিয়ে শহরের অলিগলিতে এখন রিক্সা চালিয়ে যা রোজগার করি তা দিয়ে কোনমতে সংসার চালাই।

শ্রমজীবি দিন মজুর আঃ গনি, বাবুল, হারুন ফকির বলেন, কঠোর লকডাউন শুরু হওয়ার পর থেকে আমরা কোন কাজ পাচ্ছি না। ঘরে অলস সময় কাটাচ্ছি। রাস্তার বের হলেই প্রশাসন ধরে জরিমানা করে। এখন বাড়ীতে বসে খেয়ে না খেয়ে থাকতে হচ্ছে। দ্রæত সরকারীভাবে আমাদের মত শ্রমজীবিদের মাঝে সরকারীভাবে খাদ্য সহায়তা দেওয়ার জোর দাবী জানাচ্ছি।

পরিবহন শ্রমিক মজিবর ও শানু মিয়া বলেন, লকডাউন শুরু হওয়ার পর থেকে আজ পর্যন্ত সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকায় গাড়ি নিয়ে বের হতে পারছিনা। আয় রোজগার বন্ধ। সরকারীভাবেও কোন প্রকার সহায়তা পাইনি। এভাবে চলতে থাকলে সামনের দিনগুলোতে কিভাবে চলবো তা ভেবে পাচ্ছিনা। আমার মত অনেকেই তাদের স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে খেয়ে না খেয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

যান্ত্রিকযান ত্রি-হুইলার মাহেন্দ্রা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মোঃ জহিরুল ইসলাম খোকন মৃধা বলেন, কঠোর লকডাউনের কারনে আমতলীর অভ্যান্তরিন রুটে মাহেন্দ্র চলাচল বন্ধ থাকায় এর সাথে সংশ্লিষ্ট প্রায় ৬০০টি শ্রমিক পরিবার মানবেতর জীবনযাপন করছে। এ সকল পরিবারের মাঝে সরকারীভাবে খাদ্য সহায়তা দেওয়ার জোর দাবী জানাচ্ছি।

উপজেলা পরিসংখ্যান অফিসার মোঃ রবিউল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, উপজেলায় ২৫.০৭% মানুষ দারিদ্র সীমার নিচে বসবাস করছে। মহামারি করোনাভাইরাস ও কঠোর লকডাউনের কারনে ওই মানুষগুলো এখন আয় রোজগারহীন ও কর্মহীন হয়ে পরেছে।

উপজেলা নির্বাহী মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, উপজেলার খেটে খাওয়া হতদরিদ্র শ্রমজীবি ও অসহায় মানুষকে সহায়তায় বিষয়টি বিবেচনায় রয়েছে। বরাদ্দ পাওয়া মাত্রই তাদের বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Our Like Page
February 2024
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  
Messenger
Messenger