রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ০৫:০৮ পূর্বাহ্ন [gtranslate]
Headline
Headline
নড়াগাতী ইয়াবা ট্যাবলেট সহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার সাবেক মেয়র শামসু মাষ্টারের কবর জেয়ারত করলেন জাতীয় পার্টি সহ এলাকাবাসী গাজীপুর সদরে যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যানের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী পালিত বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্যে দিয়ে বিআরইউ’র ১২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন শ্রীপুরে ভূমি দস্যুদের হাত থেকে সম্পত্তি রক্ষায় সংবাদ সম্মেলন পটিয়ায় মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের নিয়ে  ফল উৎসবে ইউএনও  মানবিক মানুষ তৈরীর কাজ করছে এপেক্স ক্লাব  পটিয়ার জিরি ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির আহবায়ক কমিটি গঠন ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের অভিযানে মাদকদ্রব্য উদ্ধার গ্রেফতার-৪ নড়াইলে সাংবাদিকের পরিবারের উপর হামলা ও প্রান নাশের হুমকির অভিযোগ পটিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪ রামপালে তামা চোর চক্রের ৪ সদস্য আটক, তামা উদ্ধার অভয়নগরে শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিদের সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠিত যৌতুকের কারণে আত্মহনন পটিয়ায় রীমার মৃত্যুর জন্য দায়ীদের বিচার চেয়ে পরিবারের সংবাদ সম্মেলন রামপালে ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা নিজস্ব অর্থায়নে সংস্কার করলেন ব্যবসায়ী সাইফুজ্জামান গাজীপুরে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর বৃক্ষরোপণ ও চারা বিতরণ রাজশাহী মহানগরীর শিরোইল ঢাকা বাসস্ট্যান্ড থেকে ২২ জুয়াড়িকে গ্রেপ্তার সুফি মিজান এর হাতে জিয়াউল হক মাইজভান্ডারী ( ক:) ট্রাস্টের চেক হস্তান্তর  আমতলীতে বিদ্যালয় চলাকালীন সময়ে প্রাইভেট পড়াচ্ছেন সহকারী শিক্ষক শ্যামনগরে সিসিডিবি এর এনগেজ প্রকল্পে নারী সদস্যদের নেতৃত্ব উন্নয়ন ও সংগঠন ব্যবস্থাপনা বিষয়ে প্রশিক্ষণ পটিয়ার ভুয়া মহিলা ডাক্তার’কে লাখ টাকা জরিমানা
আমতলীতে মুজিব বর্ষের ঘরের মাটির কাজ না করেই কাবিখার গম আত্মসাৎ করেছেন তৎকালিন ইউএনও
/ ৪২ Time View
Update : শনিবার, ১২ মার্চ, ২০২২, ১২:৩৩ অপরাহ্ন

সাইফুল্লাহ নাসির,আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধিঃ
বরগুনার আমতলীতে কাগজে কলমে কাজ দেখিয়ে মুজিব বর্ষের ঘরের মাটির কাজ না করেই কাবিখার ২১.৮০ মেট্রিকটন গম আত্মসাৎ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে তৎকালিন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রকল্প সভাপতি গুলিশাখালী ইউনিয়নের সাবেক সংরক্ষিত এক নারী সদস্যের বিরুদ্ধে।

জানাগেছে, ২০২০-২১ অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার (কাবিখা) কর্মসূচির আওতায় ২০২১ অর্থ বছরে আশ্রায়ন প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্যায়ে ভূমিহীন ও গৃহহীন “ক” শ্রেণীর পরিবারের পুনঃবাসনের জন্য আমতলী উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে ৩৫০টি ঘর বরাদ্দ দেয়া হয়। ওই ঘরের ভূমি উন্নয়নে জেলা প্রশাসক মাটির কাজ বাস্তবায়নে ২১.৮০ মেট্রিকটন গম বরাদ্দ দেয়। ওই গম দিয়ে ৭টি ইউনিয়নে সমুদয় বরাদ্দকৃত ঘরের মাটির কাজ করার কথা থাকলেও তৎকালিন (সাবেক) উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও বর্তমানে জনপ্রশাসন মন্ত্রানালয়ের বিশেষ কর্মকর্তা (ওএসডি) মোঃ আসাদুজ্জামান শুধুমাত্র গুলিশাখালী ইউনিয়নে বরাদ্দ দিয়ে ওই কাজের প্রকল্প সভাপতি হিসেবে গুলিশাখালী ইউনিয়নের সাবেক সংরক্ষিত নারী সদস্য সাবিনা ইসলাম ময়নাকে দায়িত্ব অর্পণ করেন।

কিন্তু কাজ না করেই কাগজে কলমে কাজ দেখিয়ে তৎকালিন ইউএনও ও প্রকল্প সভাপতি মিলে ওই বরাদ্দকৃত গম আত্মসাৎ করেছেন।

গম উত্তোলনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার যৌথ স্বাক্ষর থাকার কথা থাকলেও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ মফিজুল ইসলামের কোন স্বাক্ষর নেই। তার স্বাক্ষর ছাড়াই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আসাদুজ্জামান তার একক স্বাক্ষরে প্রকল্প সভাপতি সাবিনা ইসলাম ময়না গত বছর জুন মাসে চার কিস্তিতে সমুদয় গম তুলে নেয়। কাজ না করে গম তুলে নেয়ায় বিষয়টি জানাজানি হলে মুজিব বর্ষে ঘর পাওয়াদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

আজ (শনিবার) দুপুরে সরেজমিনে ঘুরে জানা গেছে, গুলিশাখালী ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে মুজিব বর্ষে দেয়া ঘরের ভিটিতে কোন মাটির কাজ করা হয়নি। ওই ঘর পাওয়া মালিকরা নিজস্ব অর্থায়নে তাদের সকল ঘরের ভিটিতে মাটির কাজ করেছেন।

এ বিষয়ে গুলিশাখালী ইউনিয়নের গুলিশাখালী, নাইয়াপাড়া, হরিদ্রাবাড়িয়া গ্রামে মুজিব বর্ষে ঘর পাওয়া একাধিক সুবিধা ভোগীরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানায়, সরকারীভাবে আমাদের ঘরে কোন মাটির কাজ করা হয়নি। আমরা আমাদের নিজ অর্থায়নে ঘরের ভিটিতে মাটির কাজ করেছি।

প্রকল্প সভাপতি গুলিশাখালী ইউনিয়নের সাবেক সংরক্ষিত মহিলা সদস্য সাবিনা ইসলাম ময়না বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আসাদুজ্জামান স্যারের নির্দেশে প্রকল্পে স্বাক্ষর করতে বাধ্য হয়েছি। বিষয়টি ওই সময়ে আমাদের ইউনিয়নের চেয়ারম্যান (সাবেক) আলহাজ্ব অ্যাড. নুরুল ইসলাম মিয়াও জানেন।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ মফিজুল ইসলাম বলেন, মুজিব বর্ষ উপলক্ষে ঘর পাওয়া ব্যক্তিদের ঘরের ভিটেতে মাটির কাজ করার জন্য জেলা প্রশাসকের বরাদ্দকৃত ২১.৮০ মেট্রিকটন গমের কাজ কোথায় করা হয়েছে তা আমার জানা নেই। আমি ওই গম উত্তোলনে কোথাও কোন স্বাক্ষর করিনি।

উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা সমির কুমার রায় মুঠোফোনে বলেন, তৎকালিন (সাবেক) উপজেলা নির্বাহী অফিসার আসাদুজ্জামান স্যার তার একক স্বাক্ষরে গম ছাড়ের নির্দেশ দিয়েছিলেন। তাই আমি গম ছাড় দিতে বাধ্য হয়েছি। ওই গম দিয়ে কাজ করেছে কি করেনি সেটা আমার জানার বিষয় না।

এ বিষয়ে জানতে তৎকালিন (সাবেক) আমতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও বর্তমানে জনপ্রশাসন মন্ত্রানালয়ের বিশেষ কর্মকর্তা (ওএসডি) মোঃ আসাদুজ্জামানের কাছে তার ব্যবহৃত মুঠোফোনে একাধিকবার কল দিলে তিনি ফোন রিসিফ না করেই ফোনের লাইনটি কেঁটে দেন।

বরগুনা জেলা প্রশাসক মোঃ হাবিবুর রহমান মুঠেফোনে বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Our Like Page
July 2024
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
30