শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১২:৫১ অপরাহ্ন [gtranslate]
Headline
Headline
আমতলিতে কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় এলাকা ছাড়ার হুমকি পটিয়ায় ব্যবসায়ীকে হত্যার হুমকি: থানায় অভিযোগ মোল্লাহাটে স্থানীয় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষ চিএশিল্পী বিশ্বরূপ পালের একক চিত্র প্রদর্শনী শুভ সূচনা হলো ও অন্য শিল্পীদের আকর্ষণ করলো লোহাগাছ উত্তর পাড়া শুভ উদয় সংঘের সভা অনুষ্ঠিত নড়াইল সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সুষ্ঠু না হওয়ার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন নীলফামারীতে আগুনে পুড়ে গেলো ৫ টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান লোহাগড়ায় ৬১ তম বার্ষিক মতুয়া মহাউৎসব অনুষ্ঠিত ইসলামপুরে আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত রামপালে ভুল চিকিৎসায় দরিদ্র ভ্যান চালকের স্ত্রী’র জীবন সংকটাপন্ন পটিয়ায় দোয়াত-কলম মার্কার সমর্থনে ডেকোরেটার্স মালিক সমিতির সভা অনুষ্ঠিত  তালতলীতে সভা সমাবেশে ব্যস্ত তিন চেয়ারম্যান প্রার্থী ঝিকরগাছায় সেবা সংগঠনের আলোচনা সভা, ক্যাপ ও পুল প্রতিযোগিতায় ক্রেস বিতরণ ইসলামপুরের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হলেন আবিদা সুলতানা যূঁথী শ্রীপুর ও কালিয়াকৈর উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান, জামিল হাসান দুর্জয় ও সেলিম আজাদ উপজেলা নির্বাচনে বিজয়ী হাবিবুর রহমান হাবিব নীলফামারীতে জালভোট দেয়ার সময় আটক ৩ নিরাপদ অভিবাসন ও বিদেশ ফেরতদের পুনরেকত্রিকরণ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত অবনীন্দ্র সভাঘরে,‌ কবি সাতকর্ণী ঘোষের গ্রন্থ প্রকাশিত হলো… এই ভূমি সমগ্র জীবন গাজীপুরে জাল টাকাসহ দুইজন গ্রেফতার
দামুড়হুদার ঐতিহাসিক আট কবরে চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশের শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পন
/ ১৩৮ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ৫ আগস্ট, ২০২১, ৯:৫৩ পূর্বাহ্ন

জাহাঙ্গীর আলম মানিক দামুড়হুদাঃ
চুয়াডাঙ্গা জেলার সুযোগ্য পুলিশ সুপার মোঃ জাহিদুল ইসলাম আজ বৃহস্পতিবার ৫ আগষ্ট সকাল ৮ টার সময় সময় জেলা পুলিশ চুয়াডাঙ্গা’র পক্ষে দামুড়হুদা থানাধীন ৮ শহীদের গণকবর স্মৃতিসৌধে ফুলেল শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পন করেন।

১৯৭১ সালের ৫ আগস্ট। চুয়াডাঙ্গা জেলার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে মর্মান্তিক ও স্মরণীয় একটি দিন। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে এ দিনে জেলার ৮ জন মুক্তিযোদ্ধা সম্মুখ সমরে শহীদ হন। তারা হলেন-হাসান জামান, সাইফুদ্দিন তারেক, রওশন আলম, আলাউল ইসলাম খোকন, আবুল কাশেম, রবিউল ইসলাম, কিয়ামুদ্দিন ও আফাজ উদ্দীন।

১৯৭১ সলের ৩ আগস্ট বীর মুক্তিযোদ্ধা গেরিলা গ্রুপ কমান্ডার হাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে একদল বীর মুক্তিযোদ্ধা দামুড়হুদা উপজেলার সীমান্তবর্তী গ্রাম জগন্নাথপুর গ্রামের শেল্টার ক্যাম্পে অবস্থান করছিলেন। ৪ আগস্ট মুক্তিযোদ্ধারা পাশের বাগোয়ান গ্রামের মুসলিম লীগের দালাল কুবাদ খাঁকে ধরে নিয়ে আসে। মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তানি হানাদারদের উপর আক্রমণ করার পরিকল্পনা করছিল। ৫ আগস্ট সকালে পাকিস্তানি দালাল কুবাদ খাঁর দু’জন লোক মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্পে গিয়ে খবর দেয়, রাজাকাররা তাদের ধান কেটে নিয়ে যাচ্ছে। এ খবর শুনে মুক্তিযোদ্ধা হাসান জামানের নেতৃত্বে একদল মুক্তিযোদ্ধা রাজাকারদের শায়েস্তা করার জন্য অস্ত্র নিয়ে আনুমানিক ২ কিলোমিটার দূরে বাগোয়ান গ্রামের মাঠে দুই দলে বিভক্ত হয়ে অগ্রসর হতে থাকে। মুক্তিযোদ্ধাদের রেকি দল ফিরে যাওয়ার সাথে সাথে নাটুদহ ক্যাম্পের পাকিস্তানি সেনারা পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী মাঠের আখ ক্ষেতে ‘ইউ’কাটিং অ্যাম্বুশ করে। মুক্তিযোদ্ধারা কিছু বুঝে ওঠার আগেই তাদের অ্যাম্বুশে পড়ে যায়। এখানে পাকিস্তানি হানাদারদের সাথে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রায় আড়াই ঘণ্টা যুদ্ধ হয়। পাকিস্তানি হানাদারদের কাছে থাকা আধুনিক আগ্নেয়াস্ত্র মুক্তিযোদ্ধাদের উপর ব্যবহার করতে থাকে। অবস্থা বেগতিক দেখে মুক্তিযোদ্ধারা কৌশলে দুটি দলে বিভক্ত হয়ে শত্রম্নকে আক্রমণ করতে থাকে। এ অবস্থায় যে কোনো একজনকে কাভারিং ফায়ার দিয়ে নিজ দলকে বাঁচাতে হয়। বীর মুক্তিযোদ্ধা হাসান জামান স্বাভাবিক ফায়ারের দায়িত্ব নিয়ে শহীদ হন। পিছু হটার সময় তারা অন্য সাথীদের বাঁচাতে পারলেও শহীদ হন ৮ বীর মুক্তি সেনা। পাকিস্তানি হানাদাররা তাদেরকে ঘিরে ফেলে খুব কাছ থেকে গুলি করে হত্যা করে। এই সম্মুখযুদ্ধে পাকিস্তানি হানাদারদের অনেক সদস্য মারা যায় এবং আহত হয়। পরে জগন্নাথপুর গ্রামের মানুষ রাস্তার পাশে দু’টি কবরে চারজন করে আটজন শহীদ মুক্তিযোদ্ধার লাশ কবর দেয়। কালক্রমে এই আটজন মুক্তিযোদ্ধার কবরকে ঘিরেই এ স্থানটির নামকরণ হয়েছে ‘আটকবর’।

মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলাইমান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুনের প্রচেষ্টায় ১৯৯৮ সালে এলজিইডি’র তৎকালীন প্রধান প্রকৌশলী কামরুল ইসলাম সিদ্দিকীর প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে ওই গণকবরের উপর স্মৃতিসৌধ গড়ে তোলা হয়। নাম দেওয়া হয় ‘আটকবর’।

উক্ত অনুষ্ঠানে আরোও উপস্থিত ছিলেন ৮ শহীদ স্মৃতি কমপ্লেক্স এর প্রতিষ্ঠাতা চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার সেলুন, চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব হাজী আলী আজগার টগর, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(প্রশাসন) জনাব আবু তারেক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর) জনাব কনক কুমার দাস, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর সার্কেল) জনাব জাহাঙ্গীর আলম, দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব দিলারা রহমান, শিক্ষানবীশ সহকারি পুলিশ সুপার জনাব সাজিদ হোসেন, জনাব আব্দুল খালেক, অফিসার ইনচার্জ, দামুড়হুদা থানা, জনাব মাহাব্বুর রহমান, অফিসার ইনচার্জ, দর্শনা থানা সহ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Our Like Page
May 2024
M T W T F S S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930