সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:২৭ পূর্বাহ্ন [gtranslate]
Headline
Headline
উপজেলা নির্বাচনে ঝালকাঠি সদর ১০জন ও নলছিটিতে ১৪জন প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র জমা নীলফামারীতে পাখির বাসার কারনে রক্ষা পেলো আনসার ভিডিপি ক্যাম্প, বসতঘর এবং কয়েকটি দোকান উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে -২০২৪ আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে কাপাসিয়ায় ৮ প্রার্থীকে শোকজ মধুপুরে ঈদপুনর্মিলনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত গাজীপুরে বনে জবরদখল উচ্ছেদে উচ্চ আদালতের নির্দেশ বাস্তবায়নের দাবিতে মানববন্ধন চৌদ্দগ্রামে সাংবাদিক কে প্রাণনাশের হুমকি, নিরাপত্তায় জিডি জামিন চেয়ে আবারও আবেদনের প্রস্তুতি মিন্নি’র ঝিকরগাছার পল্লীতে মেয়েকে খুঁজে না পেয়ে থানায় অভিযোগ কালিয়ায় ছয় বাড়িতে দুর্বৃত্তের তান্ডব পটিয়ায় পৃথক সড়ক  দুর্ঘটনায় নিহত ৪ পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৫০০ গ্রাম গাঁজাসহ একজন গ্রেফতার টাঙ্গাইল জেলায় সার্কেল অফিসার হিসেবে প্রথম স্হান অর্জন করলেন মধুপুর সার্কেল অফিসার রামপালে গাঁজাসহ তিন মাদক কারবারি আটক বিশ্ব জলবায়ু পরিবর্তনে ও পরিবেশ রক্ষায় একশনএইডের জলবায়ু ধর্মঘট পালন মধুপুরে চালু হয়েছে নারী উদ্যোগত্বা পারুলের ঢাকা রেস্টুরেন্ট শ্রীপুরে মাদক ব্যবসার জেরে পোশাক শ্রমিককে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে হত্য মধুপুরে জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরে প্রবাসীকে মারপিট করে গুরুতর আহত উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যানপদে নির্বাচন করতে  চাই নেতা  ওসমান গণী  শ্রীপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করবেন এডভোকেট জামিল হাসান দুর্জয় নীলফামারীতে স্কুলের যাতায়াতের পথ বন্ধ করে দেয়া হলো দেয়াল
শ্রীপুরে মা-ছেলেকে হত্যা, ৩৩ দিন পর আসামি রং মিস্ত্রী গ্রেফতার
/ ৯৬ Time View
Update : শুক্রবার, ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩, ১১:৫৪ পূর্বাহ্ন

আনোয়ার হোসেন, শ্রীপুর গাজীপুর প্রতিনিধি:
গাজীপুরের শ্রীপুরে মা ও শিশু সন্তান হত্যার ঘটনায় জড়িত রহমত উল্লাহ (২৯) নামের একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।বুধবার দিবাগত ভোর রাতে যশোরের সিমান্ত এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। আসামি রহমত উল্লাহ গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া উপজেলার কুশদী গ্রামের গিয়াসউদ্দিনের ছেলে।

শুক্রবার দুপুরে হত্যার রহস্য উদঘাটন সম্পর্কে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান সহকারী পুলিশ সুপার কালিয়াকৈর সার্কেল আজমির হোসেন।

তিনি বলেন, রহমত উল্লাহ পেশায় একজন রং মিস্ত্রি।সে হত্যাকাণ্ড ঘটানোর তিন চার মাস আগে শ্রীপুরের কেওয়া পশ্চিম খন্ড এলাকায় ভাড়া থেকে কাজের সন্ধান করতে থাকেন। এ সময় স্থানীয় রুবিনার সাথে পরিচয় হয় রহমতুল্লাহর।এবং রুবিনা তার টিনসেড হাফবিল্ডিং বাড়ীতে রংয়ের কাজ করায়। রুবিনার বাড়িতে
রংয়ের কাজ করার সুবাধে রুবিনার সাথে তার ভাল সম্পর্ক গড়িয়া উঠে।

রুবিনা এবং তার স্বামীর সাথে সম্পর্ক ভাল না থাকায় রুবিনার স্বামী অন্যাত্র থাকিত। রহমত উল্লাহ রুবিনার বাসার বাজার সহ সমস্ত কাজ করে দিত।

যার ফলে প্রতিনিয়ত রুবিনার বাসায় যাতায়াত ছিল রহমত উল্লাহর। এক পর্যায়ে রুবিনার সাথে শারীরিক সম্পর্ক করার প্রস্তাব দেয় রহমত উল্লাহ।এতে রুবিনা রাজী হয়নি। পরবর্তীতে ঘটনার ৭ দিন পূর্বে ২৮ ডিসেম্বর ২২ তারিখে রুবিনা তার শারীরিক অসুস্থতার কথা জানায় এবং ওষুধের দোকান হইতে ওষুধ নিয়া আসার জন্য বলে।পরে ওষুধের সাথে ঘুমের ওষুধ নিয়ে রুবিনাকে দেয় এবং খাওয়ার জন্য বলে।

পরে রাত ৮ টার দিকে রুবিনার সাথে শারিরীক সম্পর্ক করার জন্য বাড়িতে গেলে রুবিনাকে অর্ধচেতন অবস্থায় দেখতে পায়। তখন রুবিনার ছেলে
জিহাদ মোবাইল ফোনে গেমস খেলতেছিল। জিহাদ জেগে থাকায় জিহাদের ঘুমের জন্য অপেক্ষা করে।

পরে জিহাদ ঘুমিয়ে পড়িলে রুবিনার সাথে শারীরিক সম্পর্ক করতে চেষ্টা করে এই সময় রুবিনা অর্ধচেতন অবস্থায় বাধা দেয়। ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে শিশু জিহাদ জেগে ওঠে চিৎকার দেয়। জিহাদ যাতে চিৎকার করিতে না পারে তাই জিহাদের গলা চেপে ধরে কিছুক্ষন পরে জিহাদ কোন শব্দ না করলে জিহাদ মারা গেছে বুঝিতে পেরে রুবিনাকেও গলা চেপে হত্যা করে।

এসময় রুবিনার ব্যবহৃত ২ টি মোবাইল ফোন ভ্যানিটি ব্যাগে থাকা নগদ ২৫০০ টাকা পায়ে থাকা একজোড়া রুপার নুপুর খুলে নিয়ে ঘরের দরজা ও গেইট বাহির থেকে তালা দিয়ে রহমত উল্লাহ পালিয়ে যায়।

শ্রীপুর থানার উপপরিদর্শক এসআই আমজাদ হোসেন ও উপপরিদর্শক মোশাররফ হোসেন চৌধুরী বলেন,হত্যা কান্ডের পর থেকে আসামী পলাতক ছিল। পরবর্তী সময়ে মোবাইল ফোনের সুত্র ধরে বিভিন্ন প্রযুক্তি ব্যবহার করে তার অবস্থান নিশ্চিত করে ভারতের সিমান্তবর্তী এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

শ্রীপুর মডেল থানার পরিদর্শক ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, মা ছেলে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জড়িত আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামি নিজেই তার হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেছেন।আসামীকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গাজীপুরের শ্রীপুরেে নিখোঁজের তিনদিন পর (৭জানুয়ারি) শনিবার বিকালে পৌরসভার কেওয়া পশ্চিমখন্ড গ্রামের এসিআই ফেক্টরীর পাশে নিহতের নিজ বসত ঘর থেকে মা ও শিশু সন্তানের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত নারী রুবিনা (২২) উপজেলার কেওয়া পশ্চিম খন্ড এলাকার সিজার মিয়া সিরুর মেয়ে ও মো. ঝুমন মিয়ার স্ত্রী। তিনি বাবার বাড়িতে জমি কিনে বাড়ি করে সেখানেই থাকতেন। অপর নিহত ৬ বছর বয়সী শিশু নিহতের ছেলে জিয়াদ।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Our Like Page
April 2024
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031